যুক্তরাষ্ট্রে নিহত দুই বাংলাদেশির লাশ পাঠানো হচ্ছে বাংলাদেশে

অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পথে নদীতে ডুবে মারা যাওয়া দুই বাংলাদেশির মরদেহ পাঠানো হচ্ছে বাংলাদেশে।

নিহত দুই তরুণের বাড়ি শাহাদাত হোসেন নয়ন (১৮) ও মাইনুল হাসান হৃদয়ের (২১) বাড়ি নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ী ও বেগমগঞ্জ উপজেলায়।

রোববার ব্রুকলিনে বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টারে নিহত দুই তরুণের জানাজার পর বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানায় নিউ ইয়র্কে মানবাধিকার সংস্থা ‘দেশিজ রাইজিং আপ অ্যান্ড মুভিং (ড্রাম)’-এর সংগঠক কাজী ফৌজিয়া।

যুক্তরাষ্ট্রে ‘বৃহত্তর নোয়াখালী জেলা সোসাইটি’র সাধারণ সম্পাদক জাহিদ মিন্টু জানান, গত ১৪ মে শাহাদাত হোসেন নয়ন ও মাইনুল হাসান হৃদয়ের লাশ টেক্সাস-মেক্সিকো সীমান্ত সংলগ্ন ওয়েব কাউন্টিতে রাইয়ো গ্র্যান্দে নদী থেকে উদ্ধার করা হয়। দালালকে মোটা টাকা দিয়ে আরও কয়েকজনের সাথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তারা বিভিন্ন দেশ ঘুরে মেক্সিকো হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ঢোকার সময় নিহত হন।

ড্রামের কমিউনিটি অর্গানাইজার কাজী ফৌজিয়া বলেন, “টেক্সাসের মেডিকেল এক্সামিনারের প্রসেসিং সেন্টার থেকে লাশ উদ্ধার করতে অনেক ঝামেলা পোহাতে হলো। কারণ, উভয়কেই বেওয়ারিশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল।”

জাহিদ মিন্টু জানান, ১৭ দিন পর শুক্রবার রাতে টেক্সাস থেকে নিউ ইয়র্কে দুই তরুণের লাশ আনা হয়েছে। ড্রামের সহযোগিতায় নোয়াখালী সোসাইটির ব্যবস্থাপনায় লাশ বাংলাদেশের নোয়াখালীর গ্রামের বাড়িতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইমিগ্রেশন আইনজীবী মঈন চৌধুরী বলেন, “বেআইনী পথে যুক্তরাষ্ট্রে আসার এমন ঝুঁকি কারোরই নেওয়া উচিত নয়। সাম্প্রতিক সময়ে অনেক মানুষ পানিতে ডুবে নয়তোবা গভীর জঙ্গলে হিংস্র প্রাণীর আক্রমণে জীবন হারিয়েছে।”