উইলিয়ামসনের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানকে হারাল নিউ জিল্যান্ড

ফখর জামানের ব্যাটে ম্যাচে ফিরেছিল পাকিস্তান। বড় রান তাড়ায় শুরুতেই হোঁচট খাওয়া দলটি জাগিয়েছিল আশা। কিন্তু সেই রোমাঞ্চে জল ঢেলে দিল বৃষ্টি। কেন উইলিয়ামসনের সেঞ্চুরিতে জয় দিয়ে সিরিজ শুরু করল নিউ জিল্যান্ড।

প্রথম ওয়ানডেতে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৬১ রানে জিতেছে নিউ জিল্যান্ড। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে ৩১৬ রান তাড়ায় ৩০.১ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৬ রান করে পাকিস্তান। এরপর বৃষ্টি নামলে আর খেলা সম্ভব হয়নি। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে সে সময়ে অতিথিদের দরকার ছিল ২২৮ রান।

লক্ষ্য তাড়ায় পাকিস্তানের শুরুটা ছিল বাজে। প্রথম ওভারে পরপর দুই বলে এলবডব্লিউ করে আজহার আলি ও বাবর আজমকে বিদায় করেন টিম সাউদি। নড়বড়ে মোহাম্মদ হাফিজকে বিদায় করেন ট্রেন্ট বোল্ট।

শোয়েব মালিকের পাল্টা আক্রমণের চেষ্টা শুরুতেই ব্যর্থ করে দেন সাউদি। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগে সরফরাজ আহমেদকে তুলে নেন টড অ্যাস্টল। ৫৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ভীষণ বিপদে পড়ে পাকিস্তান।

৩২ বলে ৪টি চারে ২৮ রান করা শাদাবকে ফিরিয়ে অতিথিদের ৭৮ রানের জুটি ভাঙেন বোল্ট। পরের বলে পেতে পারতেন ফাহিম আশরাফের উইকেট, কিন্তু মিচেল স্যান্টনার ছেড়ে দেন সহজ ক্যাচ।

ফাহিম-ফখরের জুটিতে দ্রুত এগোচ্ছিল পাকিস্তান। কিন্তু বৃষ্টির জন্য শেষ করতে পারেননি তারা, পারেনি হার এড়াতে। ৮৬ বলে ৫টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৮২ রানে অপরাজিত ছিলেন ওপেনার ফখর।

সাউদি ৩ উইকেট নেন ২২ রানে। বোল্ট ৩৫ রানে নেন দুটি উইকেট।

এর আগে কলিন মানরোর বিস্ফোরক ইনিংসে উড়ন্ত সূচনা পায় নিউ জিল্যান্ড। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরির সুখস্মৃতি নিয়ে খেলতে নামা বাঁহাতি ওপেনার ফিফটি তুলে নেন ৩৩ বলে। তাকে ফিরিয়ে ৭৫ বল স্থায়ী ৮৩ রানের জুটি ভাঙেন হাসান আলি।

ফখর জামানের ব্যাটে ম্যাচে ফিরেছিল পাকিস্তান। বড় রান তাড়ায় শুরুতেই হোঁচট খাওয়া দলটি জাগিয়েছিল আশা। কিন্তু সেই রোমাঞ্চে জল ঢেলে দিল বৃষ্টি। কেন উইলিয়ামসনের সেঞ্চুরিতে জয় দিয়ে সিরিজ শুরু করল নিউ জিল্যান্ড।

প্রথম ওয়ানডেতে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৬১ রানে জিতেছে নিউ জিল্যান্ড। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে ৩১৬ রান তাড়ায় ৩০.১ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৬ রান করে পাকিস্তান। এরপর বৃষ্টি নামলে আর খেলা সম্ভব হয়নি। ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে সে সময়ে অতিথিদের দরকার ছিল ২২৮ রান।

লক্ষ্য তাড়ায় পাকিস্তানের শুরুটা ছিল বাজে। প্রথম ওভারে পরপর দুই বলে এলবডব্লিউ করে আজহার আলি ও বাবর আজমকে বিদায় করেন টিম সাউদি। নড়বড়ে মোহাম্মদ হাফিজকে বিদায় করেন ট্রেন্ট বোল্ট।

শোয়েব মালিকের পাল্টা আক্রমণের চেষ্টা শুরুতেই ব্যর্থ করে দেন সাউদি। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার আগে সরফরাজ আহমেদকে তুলে নেন টড অ্যাস্টল। ৫৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ভীষণ বিপদে পড়ে পাকিস্তান।

৩২ বলে ৪টি চারে ২৮ রান করা শাদাবকে ফিরিয়ে অতিথিদের ৭৮ রানের জুটি ভাঙেন বোল্ট। পরের বলে পেতে পারতেন ফাহিম আশরাফের উইকেট, কিন্তু মিচেল স্যান্টনার ছেড়ে দেন সহজ ক্যাচ।

ফাহিম-ফখরের জুটিতে দ্রুত এগোচ্ছিল পাকিস্তান। কিন্তু বৃষ্টির জন্য শেষ করতে পারেননি তারা, পারেনি হার এড়াতে। ৮৬ বলে ৫টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৮২ রানে অপরাজিত ছিলেন ওপেনার ফখর।

সাউদি ৩ উইকেট নেন ২২ রানে। বোল্ট ৩৫ রানে নেন দুটি উইকেট।

এর আগে কলিন মানরোর বিস্ফোরক ইনিংসে উড়ন্ত সূচনা পায় নিউ জিল্যান্ড। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরির সুখস্মৃতি নিয়ে খেলতে নামা বাঁহাতি ওপেনার ফিফটি তুলে নেন ৩৩ বলে। তাকে ফিরিয়ে ৭৫ বল স্থায়ী ৮৩ রানের জুটি ভাঙেন হাসান আলি।

উইলিয়ামসনের সঙ্গে ৭৩ রানের আরেকটি ভালো জুটি গড়েন গাপটিল। হাত খোলার আগেই এই ওপেনারকে ফিরিয়ে দেন অনিয়মিত স্পিনার ফখর।

৬ রানের ব্যবধানে রস টেইলর ও টম ল্যাথামকে হারানো নিউ জিল্যান্ড তিনশ রানের কাছাকাছি যায় উইলিয়ামসন ও হেনরি নিকোলসের ৯০ রানের জুটিতে।

দশম সেঞ্চুরি পাওয়া উইলিয়ামসনকে দ্রুত ফেরানোর সুযোগ হাতছাড়া করেন অধিনায়ক সরফরাজ। ২৬ রানে জীবন পাওয়া স্বাগতিক অধিনায়ক ফিরেন ১১৫ রানে। তার ১১৭ বলের ইনিংসে ৮টি চারের পাশে ছক্কা একটি।

৪৩ বলে ৫০ রান করা নিকোলসকে ফিরিয়ে নিজের তৃতীয় উইকেট নেন হাসান। প্রথম ম্যাচে তিনিই পাকিস্তানের সেরা বোলার।

নেলসনে আগামী মঙ্গলবার দ্বিতীয় ওয়ানডে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউ জিল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩১৫/৭ (গাপটিল ৪৮, মানরো ৫৮, উইলিয়ামসন ১১৫, টেইলর ১২, ল্যাথাম ৩, নিকোলস ৫০, স্যান্টনার ৭, সাউদি ১২*, অ্যাস্টল ০*; আমির ১/৫৭, রাইস ১/৬৮, হাসান ৩/৬১, শাদাব ০/৪৯, ফাহিম ১/৫৮, ফখর ১/১৯)

পাকিস্তান: ৩০.১ ওভারে ১৬৬/৬ (আজহার ৬,ফখর ৮২*, বাবর ০, হাফিজ ১, মালিক ১৩, সরফরাজ ৮, শাদাব ২৮, ফাহিম ১৭*; সাউদি ৩/২২, বোল্ট ২/৩৫, ফার্গুসন ০/৪০, স্যান্টনার ০/৩৯, অ্যাস্টল ১/২৯)

ফল: ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে নিউ জিল্যান্ড ৬১ রানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: কেন উইলিয়ামসন